The news is by your side.

চাঁদপুরের ৮ উপজেলা ১১৫টিসহ দেশের ৪৯২ উপজেলার প্রায় ৭০ হাজার পরিবারকে পাকাঘর হস্তান্তর করেন প্রধানমন্ত্রী

0

জানুয়ারী,২৩,২০২১

এম রেজোয়ান বাদল,চাঁদপুর:

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, আজকে অত্যন্ত আনন্দের দিন। ভূমিহীন ও গৃহহীন পরিবারকে জমি ও ঘর প্রদান করতে পারাটাই আমার বড় আনন্দের।

তিনি শনিবার (২৩ জানুয়ারি) সকাল সাড়ে ১০টায় গণভবন থেকে ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে মুজিববর্ষ উপলক্ষে ভূমিহীন ও গৃহহীন পরিবারকে জমি ও ঘর প্রদান কর্মসূচির উদ্বোধনের পর এ কথা বলেন।

চাঁদপুরের ৮ উপজেলা ১১৫টিসহ দেশের ৪৯২ উপজেলার প্রায় ৭০ হাজার পরিবারকে পাকাঘর হস্তান্তর করেন তিনি।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, গৃহহীন পরিবারকে গৃহ দিতে পারছি, এটি আমার সবচেয়ে বড় আনন্দের। আমার বাবা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান দেশ ও দেশের মানুষের কথাই ভাবতেন। আমাদের পরিবারের লোকদের চেয়ে তিনি গরীব অসহায় মানুষদের নিয়ে বেশি ভাবতেন এবং কাজ করেছেন। এই গৃহ প্রদান কার্যক্রম চালু করেন বঙ্গবন্ধু ।

এই উপলক্ষ্যে চাঁদপুর জেলা প্রশাসক সম্মেলন কক্ষে আয়োজিত গৃহ হস্তান্তর অনুষ্ঠানে জেলা প্রশাসক অঞ্জনা খান মজলিশ বলেন, মাননীয় প্রধানমন্ত্রী যখন ঘোষণা দিয়েছিলেন ‘বাংলাদেশের একজন মানুষও গৃহহীন থাকবে না। সেদিন আমরা কিন্তু চিন্তাও করতে পারিনি এটি বাস্তবায়ন হবে। কিন্তু তিনি এখন তা বাস্তবায়ন করে দেখিয়েন। সে আলোকে আজকে চাঁদপুরে ১১৫টি গৃহ হস্তান্তর করা হয়েছে। এছাড়াও আজ আরেকটি আশ্রয়ন প্রকল্প ৪৫টি ঘরসহ ১৬০টি ঘর হস্তান্তর করা হবে।
জেলা প্রশাসক বলেন, চাঁদপুর জেলা পর্যায় যেমন বঙ্গবন্ধু কন্যা জননেত্রী দেশরত্ন শেখ হাসিনা অনলাইনে গৃহ হস্তান্তর অনুষ্ঠানে যুক্ত হয়েছেন,
তেমনি ৮ উপজেলা প্রশাসনও একইভাবে যুক্ত হয়ে উপকারভোগীদের মাঝে দলিল হস্তান্তর করেছেন।
পুলিশ সুপার মো. মাহবুবুর রহমান বলেন, জাতির পিতা বঙ্গবন্ধুর মাথা থেকেই প্রথমে আশ্রয়ন প্রকল্পের বিষয়টি এসেছিলো। তিনি ১৯৭২ সালে ২০ ফেব্রুয়ারি প্রথম তৎকালীন নোয়াখালী ও বর্তমান লক্ষ্মীপুর জেলার চরপোড়াগাছা গ্রাম পরিদর্শনে যান এবং ভূমিহীন-গৃহহীন-অসহায় মানুষের পুনর্বাসনের নির্দেশ প্রদান করেন। তারই ধারাবাহিকতায় বঙ্গবন্ধুর সুযোগ্য কন্যা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা একই দিনে প্রায় ৭০ হাজার ঘর হস্তান্তর করলেন।

চাঁদপুর পৌরসভার মেয়র মো. জিল্লুর রহমান বলেন, মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর গৃহহীনদের ঘর হস্তান্তর এর মাধ্যমে বাংলাদেশ আজ বিশ্বে উচ্চমাত্রায় পৌঁছে যাবে এবং রাষ্ট্রের নাগরিকদের প্রতি যে দায়িত্ব তার অন্যন্য দৃষ্টান্ত স্থাপন হবে।

অনুষ্ঠানে আরো বক্তব্য রাখেন চাঁদপুর জেলা পরিষদের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা মোহাম্মদ মিজানুর রহমান, চাঁদপুর সদর উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান নুরুল ইসলাম নাজিম ।এ সময় উপস্থিত ছিলেন অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (সার্বিক) মোহাম্মদ আবদুল্লাহ আল মাহমুদ জামান, জেলা আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক বীর মুক্তিযোদ্ধা আবু নঈম পাটওয়ারী দুলাল, অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (রাজস্ব) অসীম চন্দ্র বণিক, নারী মুক্তিযোদ্ধা ডাঃ সৈয়দা বদরুন্নাহার চৌধুরী, চাঁদপুর সদর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা সানজিদা শাহনাজ, সদর উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) ইমরান হোসাইন সজিব, চাঁদপুর প্রেসক্লাব সভাপতি ইকবাল হোসেন পাটওয়ারী, সাধারণ সম্পাদক রহিম বাদশাসহ জনপ্রতিনিধি, রাজনীতিবীদ এবং সাংবাদিকবৃন্দ।
প্রধামন্ত্রীর আনুষ্ঠানিক উদ্বোধনের পর চাঁদপুর জেলা প্রশাসক সম্মেলন কক্ষে বেশ কয়েকজন উপকারভোগীর হাতে কবুলিয়াত রেজিষ্ট্রিকৃত দলিল হাতে তুলে দেয়া হয়।

www.bbcsangbad24.com

Leave A Reply

Your email address will not be published.